আসন্ন বঙ্গবন্ধু টি-২০ তে মিরপুরের উইকেটই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ!

author name
রিপোর্টটি লিখেছেন :Rana Sikder
১৬-১১-২০২০
Feature Image

প্রায় ৮ মাস কোনো খেলা ছিল না মিরপুর শেরেবাংলা মাঠে। তাই ধারণা ছিল উইকেটগুলো বিশ্রাম পেয়ে থাকবে তরতাজা।

কিন্তু বিসিবি প্রেসিডেন্ট কাপে প্রথম ম্যাচে দেখা গেল উল্টা চিত্র। ৫০ ওভারের ম্যাচে মাহমুদুল্লাহ একাদশ গুটিয়ে যায় ১৯৬ রানে। ভাবা হচ্ছিল হয়তো দীর্ঘদিন পর খেলতে নামায় এমনটা হয়েছে। কিন্তু আসরে ৭ ম্যাচের ১৪ ইনিংসে মাত্র ৪টিতে দু’শ’ ছাড়িয়েছে। শুধু তাই নয়, তামিম ইকবাল একাদশতো ১০৩ রানেই গুটিয়ে গিয়েছিল। এবার শুরু হতে যাচ্ছে ৫ দলের বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ।

সেখানে অংশ নিবে পাঁচ দল। ডাবল লীগ হওয়াতে প্রতিদিনই থাকবে খেলা। আর সব ম্যাচই হবে মিরপুর শেরেবাংলা মাঠে! এখন পর্যন্ত তাই চূড়ান্ত হয়ে আছে। বলার অপেক্ষা রাখে না মিরপুরের উইকেট নিয়ে আবারো শুরু হতে পারে সমালোচনা।

কারণ দীর্ঘদিন থেকে এখানে ম্যাচগুলোতে দেখা গেছে দারুণ রান খরা। ঘরোয় লীগ বিপিএল, এনসিএল, বিসিএল, ডিপিএল ছাড়াও আন্তর্জাতিক ম্যাচেও এখনকার উইকেট হয়েছে সমালোচিত। সেখানে আইসিসির ডিমেরিট পয়েন্টও পেয়েছে হোমগ্রাউন্ড।

তাই বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে প্রতিটি দলের জন্যই উইকেট চ্যালেঞ্জ হবে এমনটাই অনুমেয়। বিষয়টি স্বীকার করে নিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মিডিয়া বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস।

তিনি বলেন, ‘মিরপুরের কেন যেকোনো জায়গাতে যদি উইকেট বিশ্রাম না পায় সেখানে কোনোকিছু ধারণা করা কঠিন হবে। আর মিরপুরে এমনিতে রান কম হয়। সেখানে ৫টি দল টানা খেলবে। উইকটগুলো ঘুরিয়ে-ফিরিয়ে ব্যবহার করলেও চাপতো কমবে না। তাই আমি মনে করি প্রতিটি দলের জন্যই চ্যালেঞ্জ হতে পারে এই উইকেট।’

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের প্রতিটি দলের কোচের দায়িত্ব পেয়েছেন দেশিরাই। বেক্সিমকো ঢাকার দায়িত্ব পেয়েছেন বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজন। এছাড়াও  জেমকন খুলনার কোচ মিজানুর রহমান বাবুল, মিনিস্টার রাজশাহীতে সারওয়ার ইমরান, গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামে  মোহাম্মদ সালাউদ্দিন ও ফরচুন বরিশালের দায়িত্বে আছেন সোহেল ইসলাম। সব দলের কোচদেরও আছে উইকেট নিয়ে আলাদা চিন্তা। উইকেটে যে চ্যালেঞ্জ হতে যাচ্ছে তা মানেন সারওয়ার ইমরান।

তিনি বলেন, ‘আসলে মিরপুরের উইকেট যেমন সেখানে আমি শুধু একটা চিন্তায় থাকবো না। যদি রান খরা হয় সেটি দুুই দলের জন্য হবে। আরেকটা বিষয় হলো উইকেট যে একেবারে খারাপ থাকবে তা নয়। হয়তো শুরুতে এক রকম আচরণ করবে আবার ধীরে ধীরে ঠিক হয়ে আসবে। আর টানা খেলা হলে তো সেখানে আলাদা চাপ থাকবেই।’